অপহরণকারী গ্রেপ্তার হলেন।

Samia RahmanSamia Rahman
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৪:৪২ PM, ৩০ জুলাই ২০২০

বাড়িতে একাই ছিল গাজীপুর মহানগরের নলজানী এলাকার প্রতিবন্ধী শিশু ফাহিম। বাবা-মা বাড়িতে নাথাকার সুযোগে কৌশলে সাত বছরের ফাহিমকে অপহরণ করে নিয়ে যায় তামিম হোসেন নামে এক যুবক। পরে পাশের বাড়ির পরিত্যক্ত একটি কক্ষের তালা ভেঙে ফাহিমের মুখে স্কচটেপ পেঁচিয়ে হাত-পা বেঁধে গলায় কাপড় পেঁচিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করে। তারপর প্লাস্টিকের বস্তায় ভরে ফাহিমের নিথর দেহ ফেলে দেয় একটি ঝোঁপের ভেতর। শিশুটিকে হত্যার পর তার বাবার কাছে মোবাইল ফোনে পাঁচ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। ঘটনার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে র‌্যাব-১-এর সদস্যরা ঘাতক তামিমকে গ্রেপ্তারের পর বেরিয়ে আসে ফাহিমকে অপহরণ ও হত্যারহস্য।

বুধবার সন্ধ্যায় র‌্যাব-১-এর গাজীপুর ক্যাম্পের ইনচার্জ আবদুল্লাহ আল মামুন জানান, অপহরণের একদিনের মধ্যে মূল হোতা তামিমকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছেন। জানা যায়, গত সোমবার দুপুরে গাজীপুর মহানগরের নলজানী এলাকার বাসিন্দা কামরুল ইসলামের শিশুপুত্র ফাহিম নিখোঁজ হয়। বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করেও তার সন্ধান পায়নি স্বজনরা। রাতেই ফাহিমের বাবা থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন। ওই রাতেই ফাহিমের বাবার মোবাইল ফোনে পাঁচ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে একটি ফোন আসে। মঙ্গলবার সকালে নিখোঁজ ফাহিমের পরিবারের সদস্যরা তাকে উদ্ধারে র‌্যাব-১-এর সহযোগিতা চান। এর পরই গাজীপুর ক্যাম্পের র‌্যাবের সদস্যরা ফাহিমকে উদ্ধারে মাঠে নামেন। মোবাইল ফোনের সূত্র ধরে মহানগরের শিববাড়ি এলাকা থেকে অপহরণকারী তামিমকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। পরে তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে সন্ধ্যায় ভাড়া বাসার পাশে ঝোঁপের ভেতর থেকে প্লাস্টিকের বস্তার ভেতরে থাকা ফাহিমের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

আপনার মতামত লিখুন :