এইচএসসি পরীক্ষা কবে দুশ্চিন্তায় অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা।

Samia RahmanSamia Rahman
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০১:৩২ PM, ২৯ জুলাই ২০২০

মহামারী ভাইরাসের কারণে স্কুল-কলেজ সব বন্ধ হয়ে গিয়েছিল সব শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা পড়াশোনা সব আটকে গিয়েছে মূলত এইচএসসি পরীক্ষা এপ্রিলে হত কিন্তু মহামারীর কারণে এখনও পরীক্ষা হয়নি দুশ্চিন্তায় শিক্ষার্থীরা এবং তাদের অভিভাবকরা।

রংপুর থেকে সাবিহা আলম। রংপুর সরকারি কলেজের এই শিক্ষার্থীকে তার বাবা নিয়ে গিয়েছিলেন মানসিক চিকিৎসকের কাছে। চিকিৎসক তার প্রধান সমস্যা চিহ্নিত করেন উদ্বিগ্নতা। যার ফলে প্রয়োজনীয় ঘুম হচ্ছে না। ঘুমে প্রায়ই দেখছেন দুঃস্বপ্ন। সাবিহা এইচএসসি পরীক্ষার্থী। করোনায় গৃহবন্দি সাবিহার সারাদিন কাটে ভীষণ দুশ্চিন্তায়। সাবিহা বলেন, সারাদিন থাকতে হয় বাড়িতে।

জানা যায়, প্রাণঘাতী করোনায় থমকে আছে দেশের শিক্ষাব্যবস্থা। চলতি বছরে এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয়ার কথা ছিল প্রায় ১৩ লাখ পরীক্ষার্থীর। ১লা এপ্রিল শুরু হওয়ার কথা ছিল তাদের এই পরীক্ষা। পরীক্ষা না হওয়ায় বিপত্তিতে পড়েছেন অভিভাবকরাও।

এরই মাঝে সারাক্ষণ মাথায় কাজ করে পরীক্ষা। কবে হবে পরীক্ষা? তিনি বলেন, রাতে ঘুমাতে পারি না ঠিকমতো। দুঃস্বপ্ন দেখি, সারা শরীর ঘামে ভিজে যায়। ডাক্তারের কাছে যাবোই না, আব্বু জোর করে নিয়ে গিয়েছিল।

সাবিহার চিকিৎসক মানসিক রোগ বিশেষঞ্জ ডা. ইমতিয়াজ সাব্বির। বসেন রংপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে। তিনি বলেন, সাবিহার তেমন কোনো সমস্যা নেই। সর্বক্ষণ পরীক্ষা নিয়ে চিন্তা করায় ঠিকমতো ঘুমাতে পারছে না। আর ঘুমালেও তা স্বাস্থ্যসম্মত হচ্ছে না।

তিনি আরো বলেন, আপনি খেয়াল করে দেখবেন আমরা অনেকেই স্বপ্ন দেখি- পরীক্ষার হলে বসে আছি, কিছু লিখতে পারছি না, পরীক্ষার সময় শেষ হয়ে আসছে কিংবা কলমে কালি নেই। এ থেকে বোঝা যায় আমাদের মাঝে একটা পরীক্ষা ভীতি রয়েছে।

আর এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা পিছিয়ে যাবার কারণে তারা স্বভাবতই দুশ্চিন্তা করছেন। আমি এসব পরীক্ষার্থীদের অভিভাবকদের বলতে চাই- করোনা, পরীক্ষা এসব নিয়ে তারা অনেক চাপে রয়েছে। তাদের একটু চাপমুক্ত রাখুন। তাদের এই সময়টাতে রাগারাগি না করাই উত্তম।

আপনার মতামত লিখুন :