কোন বহনকারীদের উদ্দেশ্য ছিল এক নেতাকে হত্যার পরিকল্পনা।

Samia RahmanSamia Rahman
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৫:৫১ PM, ৩১ জুলাই ২০২০

 

রাজধানীর পল্লবী থানায় জব্দকৃত অস্ত্রসহ তাদের থানায় নিয়ে যাওয়ার পর বিস্ফোরণ ঘটে। থানার পুলিশ পরিদর্শক ইমরানুল ইসলামের দ্বিতীয় তলার রুমে ওয়েট মেশিনটি রাখার পর বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এ সময় চার পুলিশ সদস্য ও একজন সিভিল গুরুতর আহত হন।

রাজধানীর পল্লবী থানায় বোমা বিস্ফোরণে জড়িতরা ভাড়াটে খুনি। তাদের টার্গেট ছিল স্থানীয় একজন রাজনীতিক। প্রভাবশালী ওই নেতাকে হত্যা করতে চেয়েছিল তারা।

পুলিশ সদস্যরা জানান, বিকট শব্দে ওয়েট মেশিনটি বিস্ফোরিত হয়। মুহূর্তের মধ্যে পুলিশ সদস্যরা চিৎকার করে ওঠেন। চেয়ার উড়ে যায়। রক্তে ভেসে যায় কক্ষটি।

গতকাল ভোরে পল্লবী থানায় বোমা বিস্ফোরণের পর গ্রেপ্তার তিনজনকে বেলা ২টায় মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ কার্যালয়ে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

আজ তাদের আদালতে হাজির করে রিমান্ড চাইবে পুলিশ। পল্লবী এলাকার এক স্থানীয় প্রভাবশালী নেতাকে টার্গেট করে বোমা তৈরি করেছিল সন্ত্রাসীরা। মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে হত্যাকাণ্ড সংঘটিত করতে তৎপরতা চালাচ্ছিল। মানবজমিনকে  এই তথ্য জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার (মিডিয়া) ওয়ালিদ হোসেন।

তিনি বলেন, লোকাল এক লিডারকে হত্যার পরিকল্পনা ছিল। বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। বোমা বহনকারী তিনজনকে পল্লবীর কবরস্থান থেকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এ সময় তাদের কাছ থেকে দুটি পিস্তল, চার রাউন্ড গুলি ও একটি ডিভাইস উদ্ধার করা হয়। যা দেখতে ওয়েট মেশিনের মতো।

আপনার মতামত লিখুন :