ক্রেতাশূন্য চাঁপাইনবাবগঞ্জের গরুর হাট।

Samia RahmanSamia Rahman
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৭:০৩ PM, ২২ জুলাই ২০২০

জানা গেছে, চাঁপাইনবাবগঞ্জে ছোট-বড় মিলিয়ে ২২-২৩ টি গরুর হাট রয়েছে। এ হাটগুলোতে কোরবানীর ঈদের সময় গত এক মাস আগে থেকেই গরু বেচাকেনা শুরু হয়। কিন্তু এবার করোনা ভাইরাস মহামারী আকার ধারণ করায় হাটগুলোতে বেচাবিক্রি তেমন নেই। গত বছর এসময় গরুরহাট জমে উঠলেও এবার তা হাটগুলোর চিত্র উল্টো। স্থানীয় ক্রেতা বা বাইরের ব্যাপারী হাটে না আসায় গরু বিক্রি নিয়ে বিপাকে পড়েছে বিক্রেতারা। একদিকে দাম কম অন্যদিকে গরু বিক্রি করতে না পারাই হতাশ হাটে গরু নিয়ে আসা বিক্রেতারা। এদিকে গরুর হাটগুলোতে অধিকাংশ ক্রেতা-বিক্রেতাদের মুখে মাস্ক নেই। শরীরের সাথে শরীর ঠেকিয়ে হাটের মধ্যে চলাচল করছেন। এতে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়তে পারে বলে সচেতন মহল মনে করছেন।

কয়েকজন গরু বিক্রেতা জানান, করোনা ভাইরাসের কারণে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে গরুর চাহিদা না থাকায় গরু কিনতে আসেনি এবার ব্যাপারীরা। এছাড়া, স্থানীয় পর্যায়ে ক্রেতা তেমন নেই।

মনাকষা ও তর্ত্তিপুর হাট ইজারাদার মো. মোজাম্মেল হোসেন ও মো.ডালিম হোসেন জানান, আর ঈদ ঘনিয়ে আসায় এখনো হাট জমে না উঠায় বেশি টাকায় হাটটি ক্রয় করায় টাকা উঠবে কিনা জানিনা। এরকম অবস্থায় কখনও পড়িনি। দুই ঈদের আগে একমাস ধরে হাটে সর্বোচ্চ বেচাকেনা হয়। করোনায় রোজার ঈদে হাট বন্ধ ছিল। আর বর্তমান পরিস্থিতিতে হাটে ক্রেতা কম। এ অবস্থা চলতে থাকলে লোকসান ছাড়া অন্য কিছু ভাবা হচ্ছে না।

আপনার মতামত লিখুন :