গ্রেপ্তার হলেন আমির হোসেন

Samia RahmanSamia Rahman
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৩:৩১ PM, ২০ অগাস্ট ২০২০

 

বুধবার সিআইডির সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার জিসানুল হক বলেন, গ্রেপ্তারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আমিরের কাছ থেকে চাঞ্চল্যকর নানা তথ্য পাওয়া গেছে। সে ও তার সহযোগীরা মিলে জালিয়াতির মাধ্যমে গত তিন বছরে অন্তত ৯০০ মানুষকে কুয়েতে পাচার করেছে। ভালো বেতনে চাকরির লোভ দেখিয়ে ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে এ পর্যন্ত ৫৪ কোটি টাকার বেশি হাতিয়ে নিয়েছে তারা।

২০১৭ সাল থেকে চক্রটি বাংলাদেশ এসে মানবপাচার শুরু করে জানিয়ে তিনি বলেন, সিরাজ প্রায় ২০ বছর কুয়েতে ছিল। এরপর ধীরে ধীরে সেখানকার একটি আন্তর্জাতিক মানবপাচারী চক্রের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ে। সেখানে মামলা হলে সিরাজসহ চক্রের তিন সদস্য বাংলাদেশে পালিয়ে আসে।

সিআইডি সূত্র জানায়, তিন বাংলাদেশিসহ মোট চারজন দীর্ঘদিন ধরে বাংলাদেশ থেকে মানবপাচার করছে। সম্প্রতি একটি বিদেশি গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিবেদনে এমন তথ্য উঠে আসে। এরপর ওই গোয়েন্দা সংস্থার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে আমির হোসেনের অবস্থান শনাক্ত করে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। চক্রের বাকি দুই সদস্যকেও গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

জানা গেছে, চক্রটির সদস্যরা উচ্চ বেতনের প্রলোভন দেখিয়ে মানুষদের কুয়েতে পাচার করে আসছিল। কিন্তু সেখানে নিয়ে যাওয়ার পর ওই মানুষগুলোর জীবনে নেমে আসে অবর্ণনীয় দুর্ভোগ। তাদের কোনো কাজ দেয়া হয় না। উল্টো কাগজপত্র রেখে দেয়ার ফলে খাবার ও বাসস্থানের সংকটে পড়ে ভুক্তভোগী প্রবাসীদের পথে পথে ঘুরে বেড়াতে হয়। অনেককে কারাগারেও যেতে হয়।

আপনার মতামত লিখুন :