চট্টগ্রামে এক যুবক বন্ধুকে খুন।

Samia RahmanSamia Rahman
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৭:২১ PM, ১৫ অগাস্ট ২০২০

পুলিশ রাসেলের মরদেহ উদ্ধারের পর জানাজা-দাফনেও অংশ নেয় হাসান। সেখানে বন্ধুর মরদেহের খাট জড়িয়ে কান্নাকাটিও করে। যা থেকে সন্দেহ পুলিশের। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সন্দেহ আরো বাড়ে।
ফলে তাকে পুলিশ হেফাজতে নেয় খুলশী থানা পুলিশ। আর তাতে রাসেল হত্যার কথা স্বীকার করে হাসান। শুক্রবার সকালে এমন তথ্য জানালেন, চট্টগ্রাম মহানগর খুলশী থানার ওসি প্রণব চৌধুরী।
 তিনি বলেন, ইলেকট্রিক মিস্ত্রি কিশোর হাসান তার বন্ধু রাসেলকে হত্যার বিস্তারিত বিবরণ দিয়েছে। আদালতেও স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে সে।
হাসানুল হক হাসান ও রাসেল দুই বন্ধু। রাসেল স্কুলছাত্র, হাসান ইলেক্ট্রিক মিস্ত্রী। এর মধ্যে হাসান একটু কর্তৃত্ববাদি। কথা কাটাকাটির ক্ষোভ থেকে চট্টগ্রাম মহানগরীর খুলশী থানার পশ্চিম জালালাবাদ শাকবাজারুসংলগ্ন একটি নির্জন পাহাড়ে রাসেলকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাতে খুন করে হাসান।
তাকে চট্টগ্রাম কারা কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে গাজীপুরের কিশোর উন্নয়ন কেন্দ্রে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে। তিনি জানান, গত ৩১শে জুলাই ঘুরতে যাওয়ার কথা বলে বাসা থেকে বের হয় রাসেল। তারপর সে আর বাসায় ফেরেনি।
অনেক খোঁজাখুঁজি করে তাকে না পেয়ে তার বাবা হুমায়ুন কবির খুলশী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। ঘটনা তদন্তে নেমে সোমবার রাত সাড়ে আটটার দিকে নগরের খুলশী থানার পশ্চিম জালালাবাদ শাকবাজার সংলগ্ন একটি পাহাড় থেকে রাসেলের পঁচা গলা লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

আপনার মতামত লিখুন :