চিনা ছাত্রদের ভিসা বাতিল করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

Samia RahmanSamia Rahman
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৪:০৩ PM, ১০ সেপ্টেম্বর ২০২০

 

মার্কিন সচিব মাইক পম্পেও জানিয়েছিলেন, বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে চীনা ছাত্ররা কী কাজ করছে, তার দিকে কড়া নজর রাখতে হবে। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রশাসনের তরফ থেকে নোটিস পাঠানো হয়েছে। যাতে বলা হয়েছে, বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বৌদ্ধিক তথ্য চুরি হচ্ছে কি না, সে দিকে খেয়াল রাখতে হবে।

চীনা ছাত্রদের ভিসা দেওয়ার ক্ষেত্রে অ্যামেরিকা কড়া মনোভাব আগেই নিয়েছিল। কিন্তু কতজন ছাত্রের ভিসা বাতিল হয়েছে, সে বিষয়ে দীর্ঘদিন পর্যন্ত তথ্য দেয়নি অ্যামেরিকা। বুধবার প্রথম অ্যামেরিকা এ বিষয়ে তথ্য প্রকাশ করে। সেখানেই জানা যায়, এক হাজার ছাত্রের ভিসা বাতিল হয়েছে।

করোনার সময় থেকেই অ্যামেরিকা এবং চীনের মধ্যে দ্বন্দ্ব শুরু হয়েছে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট একাধিকবার বলেছিলেন, চীনের গাফিলতিতেই করোনা ভাইরাস গোটা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে। চীনের উহানের একটি পরীক্ষাগারকে নিশানা করেছিলেন তিনি। এখানেই শেষ নয়, এরপর চীনের বিরুদ্ধে চক্রান্তের অভিযোগ করেন ট্রাম্প।

জানান, চীনের নাগরিকরা অ্যামেরিকায় এসে তথ্য চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে। চুরি হচ্ছে ইনটেলেকচুয়াল বা বৌদ্ধিক তথ্যও। অ্যামেরিকায় দুইটি চীনের কনসুলেট বন্ধ করে দেওয়া হয়। বেশ কয়েকজন দূতাবাস কর্মীকে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়।

পাল্টা ব্যবস্থা নেয় চীনও। সেখানেও মার্কিন কনসুলেট বন্ধ করা হয়। দূতাবাস কর্মীদের কার্যত দেশ থেকে তাড়িয়ে দেওয়া হয়। অ্যামেরিকার বিরুদ্ধে আরো গুরুতর ব্যবস্থা নেওয়ার কথাও বলা হয় চীনের তরফ থেকে।

কিন্তু তাতেও জল গলেনি। বস্তুত মে মাসেই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প জানিয়ে দিয়েছিলেন, চীনা ছাত্রদের ভিসা দেওয়ার ক্ষেত্রে আরও কড়া মনোভাব নেওয়া হবে।

আপনার মতামত লিখুন :