ছাএদলের গোপন বিয়ে নিয়ে তোলপাড়

Samia RahmanSamia Rahman
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৪:৪৫ PM, ২০ জুলাই ২০২০

ছাত্রদলের গঠনতন্ত্র মোতাবেক কে কে যোগ্য প্রার্থী, কারা বয়সের কারনে বাদ পরতে পারেন আর সবচেয়ে বেশী আলোচিত হচ্ছে অন্যতম পদপ্রত্যাশী প্রার্থীর গোপন বিয়ের ঘটনা। নারায়ণঞ্জের রূপগঞ্জে প্রায় পচিশ বছর পর ছাত্রদলের কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে আলোচনা সমালোচনার শিকার হচ্ছেন স্থানীয় পদ প্রত্যাশীরা।চলছে পক্ষে বিপক্ষে কাগজপত্র যাচাই বাছাই ও প্রত্যয়তপত্র সংগ্রহ।

২০১৪ সালে কমিটি গঠনের আশ্বাসে ভেঙ্গে দেয়া হয় উপজেলা ছাত্রদলের কমিটি। ১৯৯৫ সালে আনোয়ার সাদাত সায়েমকে সভাপতি ও আশরাফুল হক রিপনকে সাধারণ সম্পাদক করে রূপগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদলের একটি পূর্নাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়।

২০০২ সালে একটি মাত্র পদে রদবদলের মাধ্যেমে ঘয়োরাভাবে একই কমিটি পূর্নগঠন করা হয়। সেই থেকে আজো অবিভাবকহীন অবস্থায় চলছে উপজেলা ছাত্রদলের রাজনীতি।

এ অবস্থায় সামনে আসে অন্যতম প্রতিদ্বন্ধী সুলতান মাহমুদের গোপন বিয়ের খবর। এদিকে ২০০৮ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান, বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য মুস্তাফিজুর রহমান ভূইয়া দিপু এবং বিআরটিসির সাবেক চেয়ারম্যান এডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকারের আলাদা বলয় তৈরী হয়।

অদ্যাবধি তিন ধারায় বিভক্ত মূলদলসহ উপজেলা ছাত্রদল। সম্প্রতি জেলা ছাত্রদল, রূপগঞ্জে আহবায়ক কমিটি গঠনের উদ্যোগ নিলে তিন বলয় থেকে সুলতান মাহমুদ, নাহিদ হাসান ভূইয়া, মাসুদুর রহমান মাসুদসহ আরো কয়েকজন প্রার্থী হয়েছেন। শুরু হয় নতুন হিসেব নিকেশ। এ নিয়ে উপজেলা জুড়ে চলছে আলোচনা সমালোচনা।

কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত মোতাবেক যারা ছাত্রদলের নেতৃত্ব দিবে তারা অবশ্যই ২০০৫ সাল ও তার পরে এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে এছাড়া প্রার্থীকে অবিবাহিত এবং মাদকমুক্ত হতে হবে।

বিয়ের ঘটনা পুরো উপজেলায় ছড়িয়ে পড়ায় উপজেলা ছাত্রদলের আহবায়ক প্রার্থী হিসেবে প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে পরে সুলতান মাহমুদ। রূপগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদলের আহবায়ক প্রার্থী জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান মনির বলয়ে সুলতান মাহমুদ ২০১৮ সালের ৮ নভেম্বর একই এলাকায় বিএনপি নেতা জামান মিয়ার মেয়ে জান্নাতুল ফেরদৌসীকে বিয়ে করেন।

এদিকে তার প্রতিদ্বন্ধীরা তার বিয়ের কাবিননামাসহ তালাকনামার কাগজপত্র লোক সম্মুখে তুলে ধরছেন। এসব কাগজপত্র নকল দাবি করে চলতি মাসের ৯ তারিখ পাশ্ববর্তী কালীগঞ্জ উপজেলার তুমুলিয়া এলাকার আবু তাহের নামে এক কাজী ও ১০ তারিখ উপজেলা বিএনপি থেকে বিবাহিত নয় এইমর্মে প্রত্যয়নপত্র সংগ্রহ করে সুলতান।

অঙ্গীকার থাকে কন্যার ১৮ বছর পূর্ন হলে আইনানুসারে বিবাহ নিবন্ধন করে নেয়ার। কিন্ত ৪ মাস সংসার করে আমার মেয়েকে পরিত্যাগ করে সে।
এ ব্যাপারে সুলতানের সাবেক স্ত্রী জান্নাতুল ফেরদৌসীর পিতা বিএনপি নেতা জামান মিয়া বলেন, ২০১৮ সালে আমার কন্যার বয়স ১৮ বছর পূর্ন না হওয়ায় ইসলামী শরিয়া মোতাবেক বিয়ে করে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রদলের সভাপতি মশিউর রহমান রনি বলেন, বিবাহিত প্রার্থীদের প্রধান পদে থাকার কোন ধরণের সুযোগ নাই। দলের প্রতি তাদের দীর্ঘ দিনের আনুগত্য ও পরিশ্রমের ভিত্তিতে সবোর্চ জেলা-উপজেলায় সদস্য পদ দেয়া হতে পারে। আর কোন অছাত্রকে ছাত্রদলের কমিটিতে নেয়া হবে না।

ছাত্রদলের আহবায়ক প্রার্থী সুলতান মাহমুদ বলেন, আমি বিয়ে করেছি কোন প্রকার ডকুমেন্ট নেই। আমার প্রতিপক্ষের লোকজন আমার বিরুদ্ধে অপবাদ দিচ্ছে। তাছাড়া আমি রাজনীতি করে তিন ডজন মামলার স্বীকার হয়েছি। একাধিক বার জেল খেটেছি।

আপনার মতামত লিখুন :