ঢাকা চেম্বারের সেমিনারে বক্তারা।

Samia RahmanSamia Rahman
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৫:৩৭ PM, ৩০ জুলাই ২০২০

ঋণ প্রদানের প্রক্রিয়া অনেক ক্ষেত্রে দীর্ঘসূত্রতা তৈরি করছে। এই প্রক্রিয়া দ্রুত সহজ করা একান্ত প্রয়োজন। ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) আয়োজিত ‘কুটির, অতি ক্ষুদ্র, ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের অর্থায়ন এবং বর্তমান পরিস্থিতিতে উত্তরণ’ শীর্ষক ওয়েবিনারে আলোচকরা এমন আহ্বান জানান।

স্বাগত বক্তব্যে ঢাকা চেম্বারের সভাপতি শামস মাহমুদ বলেন, কভিড-১৯ মহামারির কারণে অন্যান্য খাতের মতো কুটির, অতি ক্ষুদ্র, ক্ষুদ্র ও মাঝারি (সিএমএসএমই) খাতের উদ্যোক্তারা মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। এ অবস্থা উত্তরণে সরকারের পক্ষ থেকে ইতোমধ্যে ২০ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করা হয়েছে। তবে উদ্যোক্তারা ঋণ সহায়তা ও প্রয়োজনীয় তথ্য পেতে বেশ চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হচ্ছেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক আবু ফারাহ মো. নাসের বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে ঋণ প্রদান ত্বরান্বিত করতে ব্যাংক এবং গ্রাহকদের সম্পর্ক অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তিনি উদ্যোক্তাদের ঋণ নেওয়া এবং তাদের ঋণ ব্যবহারের সক্ষমতা খতিয়ে দেখার জন্য ব্যাংকের প্রতি আহ্বান জানান।

ডিসিসিআইর ঊর্ধ্বতন সহসভাপতি এন কে এ মবিন বলেন, ডিসিসিআই পরিচালিত জরিপে দেখা যায়, ৫৯ শতাংশ ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তা মনে করেন, ব্যাংকিং চ্যানেলের মাধ্যমে ঋণ সহায়তা পাওয়ার প্রক্রিয়া বেশ জটিলতর। উদ্ভূত পরিস্থিতি মোকাবিলায় তিনি ঋণ প্রদানের পদ্ধতি সহজতর করা এবং প্রণোদনার প্যাকেজ থেকে ঋণ প্রদানের গতি আরও বেগবান করার আহ্বান জানান।

বিসিকের মহাব্যবস্থাপক আখিল রঞ্জন তরফদার প্রান্তিক পর্যায়ের উদ্যোক্তাদের প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় ঋণ দিতে বিসিকের মতো অন্য প্রতিষ্ঠানগুলোকে সম্পৃক্ত করার প্রস্তাব দেন। এসএমই ফাউন্ডেশনের মহাব্যবস্থাপক নাজিম হাসান সাত্তার বলেন, প্রণোদনা প্যাকেজ থেকে উদ্যোক্তারা কীভাবে ঋণ সহায়তা পাবেন, সে ব্যাপারে গাইডলাইন করছে এসএমই ফাউন্ডেশন। ঋণ পেতে তিনি ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের সংঘবদ্ধভাবে আবেদনের প্রস্তাব করেন। শিল্প মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব ফেরদৌসি বেগম বলেন, উদ্যোক্তাদের দ্রুততম সময়ে ঋণ দিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের নজরদারি বাড়ানো প্রয়োজন।

মুক্ত আলোচনায় ব্র্যাংক ব্যাংকের এসএমই বিভাগের প্রধান সৈয়দ আব্দুল মোমেন এসএমই ঋণের সুদের হার বিদ্যমান ৯ শতাংশ থেকে কমানোরও প্রস্তাব করেন। ডাচ্‌-বাংলা ব্যাংকের ইভিপি আনোয়ার ফারুক তালুকদার বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে বাজারে চাহিদা ও জোগানের মধ্যকার সামঞ্জস্য রক্ষা করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এক্সিম ব্যাংকের অতিরিক্ত উপব্যবস্থাপনা পরিচালক শেখ মইনুদ্দিন উদ্যোক্তাদের ‘ফিন্যান্সিয়াল লিটারিসি’ বাড়ানোর আহ্বান জানান। বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ আফজাল করিম উদ্যোক্তাদের ঋণ প্রাপ্তির জন্য জামানত হিসেবে ব্যবহূত জমির মিউটেশন প্রক্রিয়া সহজ করার ওপর জোর দেন। প্রাইম ব্যাংকের এসএমই শাখার প্রধান সাইদ এম ওমর তাইয়ুব ট্রেডিং খাতের উদ্যোক্তাদের বেশি হারে ঋণ দিতে প্রণোদনা প্যাকেজের পরিমাণ বাড়ানোর আহ্বান জানান। প্রিমিয়ার ব্যাংকের ইভিপি মো. ইমতিয়াজ উদ্দিন প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় প্রান্তিক পর্যায়ের উদ্যোক্তাদের নিয়ে আসার আহ্বান  জানান। ওয়ান ব্যাংকের এসএমই শাখার প্রধান কামরুল ইসলাম ট্রেডিং খাতের ব্যবসায়ীদের ঋণ সহায়তা বাড়ানোর জন্য প্রণোদনা প্যাকেজের পরিমাণ বাড়ানোর প্রস্তাব করেন।

আপনার মতামত লিখুন :