ধলেশ্বরী নদীর পানিতে ডুবে গেল ঘঘরবাড়ি

Samia RahmanSamia Rahman
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৩:০৯ PM, ০৭ অগাস্ট ২০২০

 

বন্যার পানির প্রবল স্রোতের চাপে সদর উপজেলার ফতুল্লার চরনসিংপুরের গোলপাল নগর এলাকার দুটি বাড়ি ভেঙ্গে পানির নিচে তলিয়ে গেছে।
বুধবার রাতে থেকে বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত গোপাল নগর এলাকার মানিকে শেখের একতলা টিনসেড বাড়ির চারটি রুম ও সারোয়ার আলেম টিনসেড বাড়ির চারটি রুম ভেঙ্গে পানিতে তলিয়ে গেছে। বাড়ি দুটি হঠাৎ ভেঙ্গে পড়ায় দুটি পরিবারের বাসিন্দারা খোলা আকাশের নিচে দিনযাপন করছেন। খবর পেয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সেলিম রেজা ও নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নাহিদা বারিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে পনির নিচে তলিয়ে যাওয়া বাড়িঘরের মালামাল উদ্ধার করার জন্য ফায়ার সার্ভিসকে খবর দিয়েছেন। পাশাপাশি দুটি বাড়ির মালিকে খাদ্য সহায়তা প্রদান করেছেন।

ক্ষতিগ্রস্থ বাড়ির মালিক মানিক শেখ জানান, বুধবার বিকেল থেকে বন্যার পানির চাপ বাড়তে থাকে। পাশে সবজি চাষি ও স্থানীয় ছেলেরা খেলাধুলা করার জন্য পানি যাতে প্রবেশ করতে না পারে সেজন্য বাধঁ তৈরি করে। কিন্তু পানি এক থেকে দেড় ঘন্টার ব্যবধানে প্রায় এক থেকে দেড়ফুট বৃদ্ধি পায়। যার কারণে বাধ ভেঙ্গে তীব্রগতিতে পানি প্রবশে করতে থাকে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সেলিম রেজা গণমাধ্যমকে বলেন, ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার দুটিকে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সার্বিক সহায়তা করা হবে। প্রবল স্রোতের চাপে পানির নিচে তলিয়ে যাওয়া মালামাল উদ্ধারের জন্য ফায়ার সার্ভিসকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। একই সাথে বাড়িঘর হারিয়ে নি:শ্ব পরিবার দুটিকে খাদ্যসামগ্রী দিয়েও সহায়তা করা হচ্ছে। তার চাইলে সরকারি ভাবে তাদের বর্তমানে থাকার ব্যবস্থা করা হবে।
এদিকে বন্যার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ফতুল্লার বক্তাবলী ইউনিয়নের কয়েক হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। অনেকের বাড়িঘরে প্রবেশ করেছে বন্যার পানি। টিউবওয়েল, বাথরুমসহ ঘরবাড়ি তরিয়ে যাওয়ায় চরম দুভোর্গ পোহাচ্ছেন পানিবন্দি মানুষ। টিউবওয়েল তালিয়ে যাওয়ায় দেখা দিয়েছে খাবার পানির সংকট। স্থানীয়দের অভিযোগ বেশ কয়েকদিন ধরে মানুষ পানিবন্দি থাকলেও সরকারি কোন ত্রাণ সহায়তা পাননি তারা।

আপনার মতামত লিখুন :