নদীপথে ভাসিয়ে আনা হচ্ছে ভারতীয় গরু – মহিষ ।

Samia RahmanSamia Rahman
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৭:৩৪ PM, ২০ জুলাই ২০২০


চোররা স্থল পথের চেয়ে এ বার বন্যার পানিতে ভাসিয়া গরু পাচার করা কে বেশি নিরাপদ ভাবছেন । ইন্ডিয়ান গরু গুলো রীতিমত কুড়িগ্রাম সহ বিভিন্ন সীমান্ত পথ দিয়ে বিজিবি থেকে লুকিয়ে আনা হচ্ছে । বাংলাদেশের বিভিন্ন গরু পালনকারীরা চিন্তিত হয়ে পড়েছেন ওসব ইন্ডিয়ান গরুর তুলনায় তাদের গৃহ পালিত কম স্বাস্থ্যবান গরু নিয়ে । ভারতের গরুর জন্য তারা তাদের গরু বিক্রি করতে পারছেন না । এছাড়া, অনেক রোগাক্রান্ত গরু দেশের বাজারে আসার ঝুঁকি বাড়ছে এবং টা দেশি গরুর সাথে মিশে রোগ ছড়ানোর দুশ্চিন্তায় আছেন বলে জানিয়েছেন খামারীরা । বিশেষ পদ্ধতিতে চোরাকারবারীরা কাটা তারের বেড়ার মধ্য দিয়ে পার করছে গরু। এর পরেই তা কলাগাছের তৈরি ভেলার সাহায্যে ভাসিয়ে দেওয়া হচ্ছে ব্রহ্মপুত্রে । স্রোতে ভাসতে-ভাসতে তা কুড়িগ্রামের উলিপুর সীমান্ত দিয়ে প্রবেশ করে দেশে । স্থানীয়রা জানান যারা সীমান্ত পার করে তাদের ঝুঁকি থাকে বেশি । তাই তারা প্রতি গরু 1000 থেকে 2000 টাকা নেন । আর যারা নদীপথে গরু পাচার করছেন তারা 500 টাকা থেকে 1000 টাকা নিয়ে থাকেন । তারপর আবার তা হাট পর্যন্ত নিয়ে যেতে রাখালদের দিতে হয় 500 থেকে 600 টাকা । এভাবে পশু আশায় দেশি খামারিরা লোকসানের আশঙ্কায় আছেন ।

আপনার মতামত লিখুন :