নারায়নগঞ্জে চাল বিতারণে অনিয়ম।

Samia RahmanSamia Rahman
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৪:২৪ PM, ৩০ জুলাই ২০২০

 

ভিজিডির চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। কার্ডপ্রতি ৩০ কেজি করে চাল দেওয়ার কথা থাকলেও দেওয়া হয় ২৫ থেকে ২৬ কেজি। দাঁড়িপাল্লার পরিবর্তে বালতিতে করে অনুমানের ভিত্তিতে চাল দেওয়া হচ্ছিল। এতে কার্ডধারীরা ৪ থেকে ৫ কেজি করে চাল কম পেয়েছেন। বুধবার সকালে গোগনগর ইউনিয়ন পরিষদের অভ্যন্তরে চাল বিতরণের সময় এ অনিয়ম দেখা যায়। খবর পেয়ে ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নওশেদ আলী পরিষদে গিয়ে চাল বিতরণ বন্ধ করে দেন।

বুধবার সকালে সরেজমিন গোগনগর ইউনিয়ন কার্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, জেলা মহিলাবিষয়ক অধিদপ্তরের কর্মচারী পিন্টু তালুকদার ভিজিডি কার্ডে স্বাক্ষর করছিলেন। এ সময় তিনি বলেন, এখানে আসার পর তোফাজ্জল হোসেন কাবিল মেম্বার এবং নারী মেম্বার তাহমিনা বেবিকে বলেছি, বালতি দিয়ে কেন চাল দিচ্ছেন। ৩০ কেজির বস্তা দেওয়ার কথা। ইউপি সচিব মাহাবুবুর রহমান বলেন, বালতিতে ১২ কেজি চাল ধরে। আমরা তখন একটু কমিয়ে ৩ বালতি করে ৩০ কেজি দিই। কী করে চাল কম দেওয়া হলো তা আমি বুঝতে পারছি না।

গোগনগর ইউনিয়নের সংরক্ষিত নারী মেম্বার তাহমিনা বেবি বলেন, খবর পেয়ে পরিষদে ছুটে আসেন চেয়ারম্যান নওশেদ আলী। তিনি এসে চাল বিতরণ বন্ধ করে দেন। তিনি বলেন, যারা মাপে চাল কম দিয়েছেন, তাদের বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সদর ইউএনও নাহিদা বারিক বলেন, সেখানে আমাদের একজন কর্মকর্তা আছেন। তাকে দায়িত্ব দেব।

আপনার মতামত লিখুন :