বন্ধ হতে পারে পাটকল

Samia RahmanSamia Rahman
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১১:৩৪ AM, ১০ সেপ্টেম্বর ২০২০

 

কাঁচা পাট রপ্তানি হওয়ার কারণে এবার বেসরকারি পাটকলগুলোও বন্ধ হয়ে যেতে পারে বলে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। উৎপাদক এবং রপ্তানিকারকরা বলছেন, এমনিতেই উৎপাদন কম, তার ওপর যদি কাঁচা পাট রপ্তানির মুখে পড়ে তাহলে ১২ মাস মিল চালানো অসম্ভব হয়ে যাবে। তাছাড়া বিশ্বের আর কোনো দেশই কাঁচা পাট বিক্রি করে না।

এ বিষয়ে বেসরকারি পাটকল মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ জুট মিলস অ্যাসোসিয়েশনের সেক্রেটারি বারিক খান বলেন, বছরের শুরুতে শিলাবৃষ্টি, এরপর ঘূর্ণিঝড় আম্পান, বন্যা এবং সর্বশেষ করোনাভাইরাসের প্রভাব। সবমিলিয়ে পাটের উৎপাদন কমে গেছে। এ ছাড়া ভারত থেকে উন্নত বীজ না আনতে পারায় নিজেদের বীজ দিয়ে উৎপাদন করতে হয়েছে। এ কারণে উন্নত জাতের পাট হয়নি।

তিনি বলেন, করোনার কারণে বিশ্ব অর্থনীতি চরম হুমকির মুখে। তারপরও রপ্তানি খাতগুলোর মধ্যে পাটের অবস্থান দ্বিতীয় স্থানে। এমতাবস্থায় যদি কাঁচা পাট রপ্তানিতে নিরুৎসাহিত না করা হয়, তাহলে এই অবস্থান খুব বেশি দিন ধরে রাখা সম্ভব হবে না।

পাটকল মালিকদের সংগঠনের কমিটির অগ্রিম হিসাব অনুযায়ী, চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরে ৫০-৫৫ লাখ বেল পাট উৎপাদন হবে। যা অন্যান্য সময়ের চেয়ে প্রায় ২০ লাখ বেল কম। এত অল্প পাট দিয়ে পাটকলগুলোর সারা বছরের চাহিদা পূরণ করা সম্ভব নয়। আবার কাঁচা পাটও রপ্তানি হচ্ছে। এমন চলতে থাকলে কাঁচা পাটের অভাবে জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারির পরেই পাটকলগুলো বন্ধ হয়ে যাবে।

আপনার মতামত লিখুন :