বেল খাওয়ার ১০ টি স্বাস্থ্য উপকারীতা

HimeHime
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১০:২৮ AM, ২০ জুলাই ২০২০

প্রকৃতিতে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে তাপমাত্রা যাতে সবার প্রাণ ওষ্ঠাগত প্রায়। এ সময়ে প্রাণ জুড়াতে বেলের সরবতের কোন জুড়ি নেই। এছাড়া বেলের রয়েছে অনেক স্বাস্থ্য গুণাগুণও। আসুন এই গরমে বেল খাওয়ার বিভিন্ন স্বাস্থ্য উপকারীতা সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিই।

১। হজম শক্তি বৃদ্ধি করতে  

গরমকালে প্রায়ই বদহজম, গ্যাস, অম্বল, পেট ব্যাথা এসব সমস্যা লেগেই থাকে। এসব সমস্যা থেকে রেহাই পেতে বেলের সরবত খুবই কাজের। বেল খেলে তা খাবার হজম হতে সাহায্য করে।  এছাড়া ফলটি পেট ঠাণ্ডা রাখতেও সাহায্য করে। ফলটি হজম প্রক্রিয়াকে উন্নত করে বলে গ্যাস, অম্বল, বমির মত সমস্যা সহজে হয় না। তাই ফরমের সময় রোজ বেলের সরবত খেলে এসব সমস্যা থেকে সহজেই বেঁচে থাকা যায়। 

২। শরীরকে সতেজ রাখতে

শরীরের এনার্জি বা শক্তি বৃদ্ধিতে বেলের অনেক ভুমিকা রয়েছে। প্রতি  ১০০ গ্রাম বেলের মধ্যে ১৪০ গ্রাম ক্যালোরি পাওয়া যায়। ক্যালোরি ছাড়াও এতে থাকে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন যা দেহের এনার্জি বাড়াতে ভুমিকা রাখে। ফলটি পেশিকে মজবুত করা সহ দেহকে সচল রাখতে সাহায্য করে। তাই গরমের সময় শরীরের ক্লান্তিভাব দূর  করে শরীরকে সতেজ রাখতে বেলের জুড়ি নেই। গরমে শরীর যখন খুব ক্লান্ত লাগে তখন একগ্লাস বেলের সরবত খেয়ে নিলে মুহূর্তেই দেহে এনার্জি পাওয়া যায়।

৩। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে

বেল রক্তকে পরিষ্কার রাখা ছাড়াও রক্ত সঞ্চালন স্বাভাবিক রাখতে ভুমিকা রাখে। ফলটি খেলে তা শরীর থেকে টক্সিন দূর করে শরীরকে পরিষ্কার রাখতে ভুমিকা রাখে। বেলে রয়েছে ভিটামিন সি যা দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেক বাড়িয়ে দেয়। এছাড়াও গ্রীষ্মকালে অনেক সময় অনেক ছোঁয়াচে রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। এসব  ছোঁয়াচে রোগ মোকাবেলায় বেলের ভুমিকা অনস্বীকার্য। 

৪। কিডনি সুস্থ রাখতে

কিডনি ভালো রাখতে বেলের গুরুত্বপুর্ণ ভুমিকা রয়েছে। বেলে রয়েছে আছে এমন কিছু উপকারী উপাদান যা কিডনিকে ডিটক্সিফাই করতে সাহায্য করে। ফলে দেহ বিভিন্ন প্রকার অসুখ থেকে কিডনিকে মুক্ত থাকে। এজন্য কিডনির সমস্যা দেখা দিলে ডাক্তারগণ রোগীকে বেল খেতে বলে থাকেন।

৫। কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে   

যারা কোষ্ঠকাঠিন্যর সমস্যায় ভুগছেন তাদের জন্য পাকা বেলের সরবত খুব উপকারি ভুমিকা রাখতে পারে। বেল যেহেতু খাবার হজমে সাহায্য করে তাই দেহে কোষ্ঠকাঠিন্যর মত সমস্যা বাসা বাঁধতে পারেনা। কেউ যদি নিয়মিত বেলের সরবত খান তাহলে দু তিন মাসের মধ্যেই তার কোষ্ঠকাঠিন্যর এই সমস্যা আর থাকবেনা। আর কোষ্ঠকাঠিন্যর জন্য যে পেট ব্যাথা হয় তাও রোধ করে এই বেল। এছাড়াও কাঁচা বেল খেলে তা ডায়রিয়া ও আমাশয় রোগ সারাতেও অনেক কাজ করে।

৬। গ্যাসট্রিক ও আলসার প্রতিরোধে

বেলে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে আঁশ। এছাড়া বেল হজম প্রক্রিয়াকে উন্নত করে। এর ফলে পেটে গ্যাসের সমস্যা তেমন হয় না। তাই নিয়মিত বেল খেলে গ্যাসট্রিক, আলসার সহ পেটে গ্যাসজনিত ব্যাথা  জাতীয় সমস্যা থেকে সহজেই মুক্ত থাকা যায়।

৭। চোখের দৃষ্টিশক্তি প্রখর করতে

বেল শরীরের যেমন উপকার বয়ে আনে তেমনই ফলটি চোখের জন্যও খুব উপকারি। এতে প্রচুর ভিটামিন এ থাকে যা চোখের জন্য একটি উপকারি উপাদান এবং এটি চোখে পুষ্টি যোগায়। ফলটি চোখের দৃষ্টিশক্তি প্রখর করতে ফলটির ভুমিকা অপরিসীম। এছাড়া চোখের বিভিন্ন রোগ যেমন গ্লুকমা, জেরসিস  রোগ হবার হাত থেকে চোখকে রক্ষা করতেও এর বিশেষ ভুমিকা রয়েছে। বেলপাতার রস মধুর সঙ্গে মিশিয়ে পান করলে চোখের ছানি কমে যায়। যারা নিয়মিত বেল খায়, তাদের চোখের বিভিন্ন অসুখ হওয়ার প্রবণতা তুলনামূলকভাবে কম থাকে।

৮। ঠান্ডা জাতীয় সমস্যা প্রতিরোধে

বেলে রয়েছে ঠান্ডা জাতীয় সমস্যা প্রতিরোধী উপাদান। তাই কারও সর্দি জ্বর হলে এক চামচ বেলপাতার রস খাওয়ালে দ্রুত সর্দি ও জ্বরভাব কেটে যায়। এছাড়া বেলপাতার রস ঠাণ্ডা ও ক্রনিক করার জন্যও অনেক উপকারী।

৯। ত্বকের স্বাস্থ্য রক্ষায়

বেলে প্রচুর পরিমানে খাদ্য আঁশ থাকে যা ত্বকের জন্যও খুব উপকারি।  নিয়মিত বেল খেলে তা ত্বককে মসৃণ রাখতে সহায়তা করে। এছাড়া এটি ব্রনের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করে।  

১০। ক্যান্সার প্রতিরোধে

বেলে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টর গুণাগুণ যা ক্যান্সার প্রতিরোধক। এর রয়েছে স্তন ক্যান্সার, কোলন ক্যান্সার ও জরায়ু ক্যান্সার রোধে বিশেষ ভুমিকা। বেল থেকে পাওয়া বেটাক্যারোটিন মানবদেহের টিউমার কোষের বৃদ্ধি রোধ করে।  তাই বিশেষ করে মহিলারা নিয়মিত বেল বা বেলের শরবত খাওয়ার মাধ্যমে ব্রেস্ট ক্যান্সার ও জরায়ু ক্যান্সারের ঝুঁকি থেকে দূরে থাকতে পারেন।   

আপনার মতামত লিখুন :