মুক্তির দাবি চেয়ে সহপাঠীদের মানববন্ধন।

Samia RahmanSamia Rahman
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৬:৪৪ PM, ০৭ অগাস্ট ২০২০

 

বেলা ১১টায় রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিল্ম অ্যান্ড মিডিয়া বিভাগের শিক্ষার্থীরা এই কর্মসূচিতে অংশ নেন। মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা চারটি দাবি তুলে ধরেন।

এগুলো হলো- শিপ্রা ও সিফাতের সার্বিক নিরাপত্তা এবং নিঃশর্ত মুক্তি দিতে হবে, মেজর (অব.) সিনহা হত্যার সুষ্ঠু তদন্ত ও শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে, সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে এবং মানসিক প্রহসন থেকে মুক্তি দিতে হবে।

কক্সবাজারের টেকনাফে পুলিশের গুলিতে নিহত সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খানের তথ্যচিত্র নির্মাণের সহযোগী দু’জনের মুক্তি চেয়েছেন তাদের সহপাঠীরা।

গ্রেপ্তার করা সাহেদুল ইসলাম সিফাত ও শিপ্রা রানী দেবনাথের মুক্তি ও নিরাপত্তার দাবিতে গতকাল বৃহস্পতিবার মানববন্ধন করেন স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

৩১ জুলাই রাতে সিনহা ও সাহেদুল কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার মেরিন ড্রাইভ সড়ক ধরে যাচ্ছিলেন। বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর তলস্নাশি চৌকিতে পুলিশের ভাষায় আত্মরক্ষার্থে ছোড়া গুলিতে নিহত হন সিনহা মো. রাশেদ খান।

ঘটনাস্থল থেকে গ্রেপ্তার করা হয় সাহেদুলকে। এ ছাড়া এ তথ্যচিত্র নির্মাণ করতে গিয়ে তারা যে রিসোর্টে উঠেছিলেন, সেখান থেকে স্টামফোর্ডের আরেক শিক্ষার্থী তাহসিন রিফাত নূর ও শিপ্রাকেও আটক করা হয়। পরে তাহসিনকে ছেড়ে দেয় পুলিশ এবং শিপ্রাকে মাদক মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়। আজকের মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা জানায়, সহকর্মী ও সহপাঠী হিসেবে তারা সিফাত ও শিপ্রার নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন ও শঙ্কিত।

শিপ্রা ও সিফাতের সহপাঠী ফয়জুল ইসলাম বলেন, ওরা একটা তথ্যচিত্র বানানোর জন্য যায়। সিফাত-শিপ্রা আমার ব্যাচমেট। আমরা একসঙ্গে অনলাইনে মিডটার্ম পরীক্ষাও দিলাম। শিপ্রা পরিচালক ও সিফাত সিনেমাটোগ্রাফার হিসেবে ওই প্রজেক্টে ছিল।

সিফাত ও শিপ্রার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ করা হয়েছে, তা মিথ্যা। ওরা এ রকম না। এটা সাজানো গল্প। আমাদের দুজন বন্ধুকে ফাঁসানো হয়েছে। দ্রম্নত ওদের মুক্তি চাই। ওদের ভবিষ্যৎ আছে। আর যেন হয়রানি করা না হয়।

আপনার মতামত লিখুন :