লাদাখ সীমান্তে ভারতের একজন কমান্ডো নিহতের ঘটনায় দেশটির গোপন একটি অভিজাত যোদ্ধাবাহিনী।

Samia RahmanSamia Rahman
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৬:৪৩ PM, ০৫ সেপ্টেম্বর ২০২০

 

শনিবার রাতে সীমান্তে অমীমাংসিত এলাকা দখল নিয়ে ফের হাতাহাতি জড়ায় ভারত ও চীনের সেনারা। সেসময় পুরোনো একটি মাইনে নিহত হন নিয়াম।
এই ঘটনায় ভারতীয় সামরিক বাহিনীর স্বল্প পরিচিত অভিজাত যোদ্ধা বাহিনী এসএফএফের অস্তিত্বের বিষয়টি সামনে এসেছে বলে রয়টার্স জানায়।

বাহিনীটির অধিকাংশ সদস্যকেই নেয়া হয়েছে ভারতে আশ্রয় নেওয়া তিব্বতি শরণার্থী পরিবারগুলো থেকে। ১৯৫৯ সালে তিব্বতে ব্যর্থ অভ্যুত্থানের পর কয়েক লাখ তিব্বতি পরিবার দালাই লামার সঙ্গে ভারতে আশ্রয় নিয়েছিলেন।

লাদাখ সীমান্তে ভারতের একজন কমান্ডো নিহতের ঘটনায় দেশটির গোপন একটি অভিজাত যোদ্ধাবাহিনীর বিষয়টি প্রকাশ্যে এসেছে।
রয়টার্স জানায়, তেনজিং নিয়াম নামে নিহত ওই কমান্ডো ভারতের স্পেশাল ফ্রন্টিয়ার ফোর্সের এসএফএফ অংশ ছিলেন।

পরিবার ও সরকারি কর্মকর্তারা বিষয়টি জানিয়েছেন। ৫৬ বছর বয়সী নিয়াম ভারতে আশ্রয় নেওয়া তিব্বতি পরিবারের সদস্য বলে জানা গেছে।
ভারতে পশ্চিম হিমালয় অঞ্চলে লাদাখ সীমান্তের প্যাংগং হ্রদের তীরে মাইন বিস্ফোরণে এসএফএফের এ কমান্ডো নিহত হন। এতে অপর একজন গুরুতর আহত হয়েছেন।

এসএফএফ এ কিছু ভারতীয় নাগরিকও আছেন। ১৯৬২ সালে চীন ও ভারতের মধ্যে যুদ্ধের পর গোপন এই বাহিনীটি গড়ে তোলা হয়। বাহিনীটি সম্পর্কে খুব বেশি কিছু জানা যায় না। ভারতীয় দুই কর্মকর্তার হিসাব মতে, বাহিনীটিতে সাড়ে তিন হাজারেরও বেশি সৈন্য আছে।

আপনার মতামত লিখুন :