বিমান এগোতে চায় ৪ পরিকল্পনা সামনে নিয়ে।

  বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তিতে এ পরিকল্পনা দিয়েছে বিমান কর্তৃপক্ষ। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মোকাব্বির হোসেন স্বাক্ষরিত ওই চুক্তিতে বলা হয়েছে, চার ধরনের কাজে গুরুত্ব দিয়ে বিমান তার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনাকে সামনে এগিয়ে নিতে চায়। বিমানের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার প্রথমেই রয়েছে, স্ট্র্যাটেজিক হিউম্যান ক্যাপিটাল প্ল্যানিং প্রণয়ন। এর মাধ্যমে প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ, বিভিন্ন ট্রেডে প্রশিক্ষণ প্রদান, যথাযথ পদায়ন, মূল্যায়ন, প্রণোদনার মাধ্যমে দক্ষ জনসম্পদ গড়ে তুলবে বিমান। দীর্ঘ সময় বন্ধ থাকার পর গত ১ জুন চালু হয় অভ্যন্তরীণ রুটের ফ্লাইট তবে যাত্রী সংকটের প্রথম দিনেই বাতিল হয় ১০টি ফ্লাইট। পরবর্তী সময়ে যাত্রী না থাকায় এখনো বন্ধই রয়েছে সব অভ্যন্তরীণ ফ্লাইটএ অবস্থায় টিকে থাকতে চার পরিকল্পনা নিয়ে সামনে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করবে রাষ্ট্রায়ত্ত উড়োজাহাজ পরিবহন সংস্থা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস। অন্যদিকে আন্তর্জাতিক মানের গ্রাহক চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে গুয়াংজু, টরন্টো, টোকিও, চেন্নাই, কলম্বো, মালে, শারজাহ, সালালাহ, বাহরাইন ও নিউইয়র্ক স্টেশনে বিমানের ফ্লাইট চালু, বিমানের নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ, আন্তর্জাতিক মানের সেবাগুলো তৈরি ও প্রদানের মাধ্যমে লাভের ধারা বজায় রাখতে চায় বিমান।...